আজ-২০শে মার্চ, ২০১৯ ইং

ঘুরে আসুন নলছিটির ‘সুজাবাদ চর’

হাসান আলম সুমন নলছিটি থেকে ॥
খুব বেশি দূরে যেতে না চাইলে নলছিটির সুজাবাদ চর থেকে ঘুরে আসতে পারেন। ভ্রমণপিপাসুদের কাছে ভ্রমণের আনন্দ বর্ণনা করে শেষ করা যায় না। দেশে কিংবা বিদেশের দর্শনীয় স্থানগুলো ঘুরে আসেন তারা। দেশের ভিতরও রয়েছে অতুলনীয় কিছু সৌন্দর্যে ভরপুর স্থান। তেমন একটি হলো ঝালকাঠি জেলার নলছিটির ‘সুজাবাদ চর’। যেখান থেকে কুয়াকাটার মত সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত উপভোগ করতে পারবেন।

দিনদিন ভ্রমণপিপাসুদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে নলছিটি’র সুজাবাদের চর। এখানে দেখার মত রয়েছে বেশ কিছু দর্শনীয় স্থান। এগুলোর মধ্যে রয়েছে সুগন্ধা নদীর মনোরম চর, শতবয়সী রেইনট্রি গাছ, সুজাবাগ কেল্লা, মল্লিকপুরের গাইবি মসজিদ, কবি কামিনী রায়ের নানাবাড়ী, চায়না কবর ও কাজী আলমগীরের বাংলো। তবে সুজাবাদ চরে আসার একমাত্র মাধ্যম ট্রলার বা নৌযোগ। নলছিটি উপজেলা শহর থেকে সহজেই নৌযোগে যে কেউ যেতে পারেন সুজাবাদের চরে। পিকনিক আয়োজনকারীরা ইচ্ছে করলে দু’তিন দিন আগে বুকিং দিয়ে বা যোগাযোগ করে সকল ব্যবস্থা আয়োজন করতে পারবেন। এজন্য স্থানীয় ভাবে সহযোগীতার জন্য রয়েছেন নলছিটি নাগরিক ফোরাম সহ স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক সদস্যরা।

সুস্বাদু রান্নার জন্য রয়েছে স্থানীয় নাম ডাকওয়ালা বার্বুচিরা। এদের মধ্যে রয়েছে হিরা বাবুর্চি, সেলিম বাবুর্চি, হারুন বাবুর্চি, মোচলেম বাবুর্চি অন্যতম। বিনোদনের জন্য স্থানীয় সংগীত শিল্পীদের রয়েছে আনাগোনা। কম বাজেটে মনোরম পরিবেশে এসব আয়োজন করার সম্ভব বলে নলছিটি নাগরিক ফোরামের সদস্য সচিব বেলায়েত হোসেন নান্নু ও নলছিটি পৌর ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম হিরন জানান।

সুজাবাদ চর থেকে ১০০ গজ দূরে গেলেই দেখতে পারবেন শতবয়সী রেইনট্রি গাছ। সেখানে দূর দুরান্ত থেকে হাজার হাজার ভ্রমণপিপাসুরা ছুটে আসেন। সেখান থেকে ১০০ গজ দুরে গেলেই দেখতে পারবেন সুজাবাদ কেল্লা। জানাযায়, মোঘল রাজপুত্র এবং বাংলার সুবেদার শাহ সুজা তার ভাই আওরাংগজেব এর রোশানল থেকে রক্ষা পেতে মোঘল সম্রাট শাহজাহানের পুত্র শাহজাদা সুজা ১৬৫৪ সালে সুজাবাদ গ্রামের পত্তন করেন এবং জলদস্যুদের দমন এবং তাদের আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য সুজাবাদ গ্রামে দু‘টি কেল্লা তৈরি করেন। কেল্লাদ্বয়ের একটি মাটি এবং অন্যটি ইট দ্বারা তৈরি। বর্তমানে দেখতে পারবেন ইতিহাসের সেই ধ্বংসপ্রায় কেল্লাটির অংশবিশেষ। যা বিলীনের পথে। সেই থেকেই সেই গ্রামের নামকরন সুজাবাদ গ্রাম।
সুজাবাদ চর থেকে নৌযোগে নলছিটি শহরের আসলেই দেখতে পারবেন ইতিহাসের স্বাক্ষী প্রাচীন আরেক মসজিদ। স্থানীয় ভাবে যা গায়েবী মসজিদ নামে পরিচিত। মল্লিকপুর গ্রামের রাস্তার পার্শে¦ এই মসজিদ। মসজিদটি কে বা কারা নির্মান করেছেন জানা না গেলেও অধিকাংশ মনে করছেন ৪ থেকে ৫শ বছরের পুরাতন।

সেখান থেকে একটু সামনে গেলেই দেখতে পারবেন চীনা কবর। সেখানেও রয়েছে অজানা অনেক ঘটনা। সেখান থেকে মাহেন্দা যোগে যেতে পারবেন সিদ্ধকাঠি কামীনি রায়ের নানা বাড়ি খ্যাত জমিদার বাড়ি।
এছাড়াও শহরের প্রাণকেন্দ্রে রয়েছে কাজী আলমগীরের বাংলো সেখানে গেলে দেখতে পাবেন হরিন, ময়ুর সহ বিভিন্ন প্রজাতির পশুপাখি। সকাল ১০ থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত সবার জন্য উম্মুক্ত। এসবের মাঝে তো রয়েছে প্রাকৃতির সৌন্দর্যে সাজানো সুগন্ধার তীর ঘেষা সুজাবাদ চর। সম্ভবনার এক নাম। পরিবার পরিজন বা পিকনিক আয়োজনের জন্য সহজেই ঘুরে যেতে পারেন নলছিটির সুজাবাদের চর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ডেন্টিস্ট দিবসে ছাত্র পরিষদের শুভেচ্ছা

ডেক্স:: আজ বিশ্ব ডেন্টিস্ট দিবস উপলক্ষ্যে দেশের সকল ডিপ্লোমা ডেন্টাল শিক্ষার্থীদের দক্ষ ডেন্টিস্ট হয়ে প্রত্যন্ত ...

ব্রেকিং নিউজঃ