লাগামহীন অপরাধের রাজ্য গড়ে তুলেছে উজিরপুরের চেয়ারম্যান

মে ০৯ ২০২০, ১১:৩৫

শফিউর রহমান কামাল বরিশাল ব্যুরো ঃ
উজিরপুর উপজেলার ২ নং হারতা ইউনিয়নে সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে বিতরণকৃত ত্রাণের চাল সঠিকভাবে পৌঁছায়নি অনেক অসহায় পরিবারের কাছে। তবুও অসহায় মানুষ উপায়হীন হয়ে নিরব থাকলেও রেশন কার্ড বিতরনে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী অসহায়দের অভিযোগ রেশন কার্ড বিতরনে স্বজনপ্রীতির আশ্রয় নেওয়ায় বিশেষ একটি গোষ্ঠী সুবিধা পাচ্ছে। বঞ্চিত হচ্ছেন দরিদ্র শ্রেনীর একটি বৃহৎ অংশ। করোনা ভাইরাসের মহামারী সময়ে সরকারের সিদ্ধান্তের আলোকে দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন ভিক্তিক ওএমএস অর্থাৎ খোলা বাজারে নির্ধারিত স্বল্পমূল্যে পণ্যসামগ্রী প্রাপ্তিতে এই কার্ড দেয়া হয়। কিন্তু হারতা ইউনিয়নের কয়েকটি গ্ৰামের কয়েকজন দিনমজুর বলেন আমাদের চেয়ারম্যান ডা. হরেন রায় ও তার সহযোগী কয়েকজন মেম্বার সুযোগে ওয়ার্ডভিক্তিক তাদের পছন্দের ব্যাক্তি বা অনুগতদের তালিকা করে ইতিমধ্যে এই কার্ড বিতরন শুরু করেছে। ফলে কেউ পাচ্ছে, কেউ বঞ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও সরকারীভাবে বরাদ্দকৃত ত্রান সামগ্রী পেয়েছেন চেয়ারম্যান ও মেম্বারের আত্নীয় স্বজন, কাছের লোকজন। কিছুদিন আগে ইউনিয়নের জেলেরা তাদের চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ এনে চেয়ারম্যান ডা. হরেন রায় এর বিরুদ্ধে উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ‌। বিষয়টি নিয়ে কিছু পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের জের ধরে আমাদের এলাকায় শফিক নামের একজন সংবাদকর্মী কে চেয়ারম্যানের লোকজন হুমকি প্রদান করেন। শফিক জীবনের নিরাপত্তার জন্য প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
আরোও বলেন আমাদের চেয়ারম্যান ডা. হরেন রায়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকমের অপকর্ম, অনিয়ম ও দুর্নীতির অনেক অভিযোগ রয়েছে।। কিন্তু হামলার ভয়ে কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায়না। তাই আমরা তার অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
বিষয়টি নিয়ে মুঠোফোনে ২ নং হারতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ডা. হরেন রায় বলেন, আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা সমসময় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারে লিপ্ত থাকেন। আর রেশন কার্ড বিতরণের তালিকা করার দায়িত্ব মেম্বারদের কে দেয়া হয়েছে। তারপরেও যদি কোন ত্রুটি থাকে আমি যাচাই-বাছাই করে সঠিক ভাবে প্রকৃত অসহায়দের মাঝে
রেশন কার্ড পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করব।
এবিষয়ে উজিরপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার প্রণতি বিশ্বাস এর
সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে সংযোগ স্থাপন করা যায়নি।

40

SHARES

মুজিব বর্ষ

আমাদের ফেসবুক পেজ


ভিন্ন খবর আরও