কবে পাবে বিধবা হত দরিদ্র ভাতার কার্ড

প্রকাশিত: ৩:১৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০২০

কবে পাবে বিধবা হত দরিদ্র ভাতার কার্ড

আরিফুল ইসলাম ,জেলা প্রতিনিধি ,গাইবান্ধা : জন্ম মৃত্যু বিয়ে শুনি এই তিনটি নাকি উপর ওয়ালার হাতে কিন্তু ভালো থাকার জন্য ভালোভাবে চলার ন্যূনতম একটু সাবলীল কথা, সাবলীল ভাষা, সাবলীল আচরণ, কিছু চাওয়া, কিছু পাওয়া তো থাকতেই পারে। কোন চাওয়া পাওয়ায় যেন পূর্ণ হচ্ছে না ৯নং ছাপড়হাটী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোছাঃ সালেহা খাতুনের। কারণ তার টাকা নেই, কোন কাজ করে নিতে হলে বৃদ্ধ ভাতায় হোক, কোন স্লিপ এর চাউল হোক সেখানে টাকা দিতে হয় মেম্বার চেয়ারম্যান দের। সেই দেবার মত টাকা তার নেই, তাই সে সরকারি সকল সুবিধা থেকেই বঞ্চিত। স্বামী মৃত্যু অফির উদ্দিন। তিনি মৃত্যুকালে ৩শতাংশ বসতভিটা ও দুই ছেলেমেয়ে রেখে মৃত্যুবরণ করেন। কিন্তু আল্লাহ তালার কি নির্মম নিয়তি, প্রায় ১২বছর হলো তার ছেলেটিও মৃত্যুবরণ করেছে। সালেহা খাতুন জিটিভির প্রতিনিধিকে বলেন, বাবা, স্বামী, সন্তান হারিয়ে ” মুই মোর নাতি-পুতিন নিয়ে খুব কষ্টে জীবন যাপন করছি।মোর একটা ব্যাটা তাই দুনিয়া থেকে চলে গেল, তার দুই বেটা এক ব্যাটি নিয়ে খুব কষ্টে জীবন যাপন করছি। হামাক দেখার কেউ নাই এই দুনিয়াতে? হামার ইউনিয়নের মেম্বার ও চেয়ারম্যানের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও আজ পর্যন্ত কোন কিছুর সাহায্য পাইনি। অনেকদিন কনক চেয়ারম্যানের বাড়িতে গেছিলাম, চেয়ারম্যান কয় মদন বাবুর সাথে কথা কও, মদন বাবু কয় চেয়ারম্যানের যা বরাদ্দ আসলো তা তো শেষ, দুইদিন পর আইসো অন্য কোন মেম্বারের সাথে কথা কইয়া দেখি তাদের কাছে যদি কোন কার্ড থাকে, পরে গেলে কয় হ এক মেম্বারের কাছে একটামাত্র কার্ড আছে। কিন্তু তাই তিন হাজার টাকা ছাড়া দেয় না। টাকার ব্যবস্থা করে নিয়ে আসো কার্ড হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অত্র ইউনিয়নের আরো কয়েকজন ভুক্তভোগী বলেন, মদন বাবু হচ্ছে চেয়ারম্যানের সহকারী, মদন বাবুকে দিয়ে চেয়ারম্যান কনক কুমার গোস্বামী, গরিবের হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ভুক্তভোগী সালেহা খাতুন জিটিভির প্রতিনিধির কাছে , আবেদন করেন যে তার যেন একটা বিনামূল্যে বা সরকারিভাবে একটা কার্ডের ব্যবস্থা হয়। তাহলে অন্তত না খেয়ে থাকার হাত থেকে রক্ষা করে অনাথ বাচ্চা গুলিকে নিয়ে জীবন যাপন করতে পারবো। উপরোক্ত বিষয়গুলো বিবেচনা পূর্বক যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট সুদৃষ্টি কামনা করেন অত্র এলাকার সুধীজনেরা।


এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest