উজিরপুরের হারতা ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মৎস্যজীবীদের চাল আত্মসাতের অভিযোগ

প্রকাশিত: ১১:৫০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০২০

উজিরপুরের হারতা ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মৎস্যজীবীদের চাল আত্মসাতের অভিযোগ

শফিউর রহমান কামাল, বরিশাল ব্যুরো : বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার ২ নং হারতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডা হরেন রায় এর বিরুদ্ধে মৎস্যজীবীদের সরকারি চাল আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে হারতা ইউনিয়নের ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের মৎস্যজীবীরা গত ২১ এপ্রিল উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ পাওয়ার পর উপজেলা নির্বাহি অফিসার বিষয়টি তদন্তের জন্য মৎস্য কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। আর অভিযোগকারী ভুক্তভোগী মৎস্যজীবীরা বিষয়টি তদন্ত করে সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উজিরপুর উপজেলার ২ নং হারতা ইউনিয়ন পরিষদের মৎস্যজীবীদের জন্য সরকার ৬৪ টি কার্ডে প্রত্যেককে দুই বারে ৮০ কেজি করে চাল দেয়ার জন্য বরাদ্দ দেয়। গত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ দুই মাসের জন্য এ চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। আর সরকারি বরাদ্দের চাল প্রত্যেক মৎস্যজীবী কার্ডধারিরা ৮০ কেজি করে পাওয়ার কথা। কিন্তু চলতি মাসের গত ২ এপ্রিল ইউপি চেয়ারম্যান ডাক্তার হরেন রায় প্রত্যেক কার্ডধারীদের ৮০ কেজি করে চাল না দিয়ে একটি স্বার্থান্বেষী মহলের সাথে যোগসাজশ করে ৬০ কেজি করে চাল প্রদান করে। মৎস্যজীবীদের চাল কম দেয়ার কারণে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানালে চেয়ারম্যান ইউপি সদস্যদের গালিগালাজ ও হুমকি দেয়। নিরুপায় হয়ে মৎস্যজীবীরা ৬০ কেজি করে চাল নিয়েই বাড়িতে চলে যায়। তারা আরো অভিযোগ করেন, ২ নং হারতা ইউনিয়নের জন্য যে ৬৪ টি কার্ড বরাদ্দ হয়েছে তাও আবার নামে-বেনামে। ৬৪ টি কার্ডের নামের তালিকা থাকা অনেকেই চাল পাইনি বলে অভিযোগকারী মৎস্যজীবীদের সন্দেহ। এমতাবস্থায় অভিযোগকারীরা বিষয়টি সঠিকভাবে তদন্ত করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে ন্যায্য বিচার দাবি করেছেন। এ বিষয়ে উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণতি বিশ্বাস আলোকিত সময় ডটকমকে বলেন, হারতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মৎস্যজীবীদের চাল আত্মসাতের অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্তের জন্য মৎস্য কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


Pin It on Pinterest