ছুটির দিনেও উত্তাল ভারত, বিক্ষোভে বুদ্ধিজীবীরাও

প্রকাশিত: ১১:১৬ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৯

ছুটির দিনেও উত্তাল ভারত, বিক্ষোভে বুদ্ধিজীবীরাও

আলোকিত ডেক্সঃখ্রিস্টানদের ধর্মীয় উৎসব ‘ক্রিসমাস ডে’ উপলক্ষে বুধবার ভারতজুড়ে ছুটি থাকলেও এর মাঝেই বিভিন্ন অঞ্চলে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে। দিল্লিতে বিক্ষোভে যোগ দেন বুদ্ধিজীবীরাও। সমাবেশে বিখ্যাত লেখিকা ও সমাজকর্মী অরুন্ধতী রায় এই আইনের বিরোধিতা করে বক্তব্য দেন। বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ করে বিরোধী দল কংগ্রেসের নেতাকর্মীরা। কানপুরে আন্দোলনকালে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ অবস্থায় বিজেপির সিদ্ধান্তে বিরোধিতা করছে শরিক দলগুলো। ভোল পাল্টে নরম সুরে কথা বলছেন বিজেপি প্রধান ও ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবেশে যোগ দেন অরুন্ধতী রায়। তিনি দেশজুড়ে আন্দোলনের মাঝে আদমশুমারি (এনপিআর) করার সিদ্ধান্তেরও বিরোধিতা করেন।অরুন্ধতী বলেন, এনপিআরকে এনআরসির (জাতীয় নাগরিক তালিকা) ডেটাবেজ হিসেবে ব্যবহার করা হবে। জনগণকে এর বিরোধিতায় নামার আহ্বান জানান তিনি। প্রয়োজনে ভুল নাম-ঠিকানা ব্যবহারের কথা বলেছেন তিনি। এনআরসি ইস্যুতে দেয়া ভাষণে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মিথ্যাচার করেছেন বলেও অভিযোগ করেন এই লেখিকা। অরুন্ধতী বলেন, নতুন নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি দেশের মুসলিমদের লক্ষ্য করেই প্রণয়ন করা হয়েছে।দিল্লি ছাড়াও এদিন পশ্চিমবঙ্গ, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশে বিক্ষোভে বিশাল জমায়েত হয়। মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের নেতৃত্বে বিশাল মিছিল বের হয়। কানপুরে বিক্ষোভকালে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে জনতা।এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে উত্তরপ্রদেশে সরকার। এছাড়া আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪৪ ধারা ভঙ্গের ঘটনায় ৪০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে প্রশাসন। পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় প্রেসিডেন্সি কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মিছিলে যোগ দেন শিক্ষকরাও।প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে ‘প্রতিশোধ’ নেয়ার ঘোষণার বাস্তবায়ন করছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। ইতিমধ্যে লখনৌ ও মুজাফফরনগরে মুসলিমদের প্রায় ৭০টি দোকানে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে পুলিশ। এবার সরকারি সম্পত্তি ভাংচুরের অভিযোগে ২৮ জনকে ক্ষতিপূরণের নোটিশ দিয়েছে রামপুর জেলা প্রশাসন। ক্ষতিপূরণ বাবদ প্রায় ১৫ লাখ রুপি দাবি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।রামপুরের জেলা প্রশাসক একে সিং জানান, পুলিশি তদন্তে সরকারি সম্পত্তি ভাংচুরে যাদের ভূমিকা সম্পর্কে জানা গেছে, তাদের কাছেই নোটিশ পাঠানো হয়েছে। কেন ক্ষতিপূরণ বাবদ অর্থ চাওয়া হবে না, তা জানাতে এক সপ্তাহ সময় দেয়া হয়েছে। বিতর্কিত আইন বাতিলের দাবিতে জনগণের প্রতিবাদ, অপরদিকে বিক্ষোভ দমাতে কঠোর সরকার। এমন অবস্থায় ক্ষমতাসীন বিজেপির নেতৃত্বাধীন জোট ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (এনডিএ) এ বাজছে দূরত্বের সুর।এক সাক্ষাৎকারে এনডিএ শরিক শিরোমণি অকালি দলের (এসএডি) নেতা নরেশ গুজরাল বলেছেন, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন চালু করার মতো সিদ্ধান্ত নিয়ে শরিকদের সঙ্গে কোনো আলোচনা করেনি বিজেপি। পাশাপাশি এই আইনে এনডিএর বেশির ভাগ শরিক অসন্তুষ্ট বলে জানান তিনি। একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় বিজেপি জোট শরিকদের অবজ্ঞা করছে বলে অভিযোগ তার।এদিকে চারদিকে বিরূপ পরিস্থিতিতে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে ভোল পাল্টেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। মোদির সঙ্গে সুর মিলিয়ে তিনি বলছেন, দেশজুড়ে এনআরসি চালুর সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি।


মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest