কলাপাড়ায় সরকারী জমিতে অবৈধ দখলের হিড়িক, প্রশাসন নিরব

প্রকাশিত: ৯:০৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০২০

কলাপাড়ায় সরকারী জমিতে অবৈধ দখলের হিড়িক, প্রশাসন নিরব

মো.ওমর ফারুক,কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি : পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় সরকারী জমি দখলের মহা-উৎসব চলছে। পায়রা বন্দর ও ১৩২০ মেঘাওয়াট তাপবিদ্যুতের উন্নয়ন কাজের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ চলমান রয়েছে। সরকারের নিকট হতে অধিক মুনাফা লাভের আশায় কতিপয় কুচক্রি মহল প্রসাশনকে ম্যানেজ করে সরকারী জমি দখল করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রশাসনের চোখের সামনে দিয়ে জমি দখলের প্রতিযোগীতা দিন দিন বেড়েই চলছে। অথচ প্রসাশন নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। সংবাদ কর্মীদের নজরে কোন বিষয় ফুটে উঠলে তখন তারা দেখছি অথবা ব্যবস্থা নিবো বলে দায়সাড়া উত্তর দিয়ে থাকে। প্রকৃতপক্ষে তাদের তেমন কোন পদক্ষেপ লক্ষ করা যায় না। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা বাজার সংলগ্ন রাস্তার দু-পাশ ঘিরে পানি উন্নয়ন বোর্ড (বাপাউবো) এর সরকারী জায়গা দখল করে নতুন ঘড় তোলার প্রতিযোগীতা চলছে। রাস্তার পাশে মো. শাহেদ মল্লিক, মো. নাসির, মো. সোহরাব গাজী, রুমান দালাল, মো. আবুল হোসেন, জাকির হাওলাদার, মো. স্বপন হাওলাদার ও মো. পারভেজ হোসেনের ঘড়সহ একাধিক ঘড় তুলতে দেখা যায়। এরকম অনেকেই সরকারের নিকট হতে ভূমি অধিগ্রহনে অধিক টাকা পাওয়ার আশায় ঘড় তুলছে বলে একটি সূত্রে জানা যায়। কিছু ক্ষেত্রে প্রসাশনকে ম্যানেজ করে তারা এ ধরনের কাজ করছে বলেও একাধিক সূত্র জানায়। সেখানে একজনের দেখা-দেখি আরেকজন ঘড় তুলছে বলেও জানা যায়। সবাই তুলছে তাই আমিও তুলছি এরকম উত্তর অনেকের নিকট হতে পাওয়া যায়। সরকারী জায়গায় ঘড় তুলছেন কিভাবে জানতে চাইলে তার কোন সঠিক উত্তর তারা দিতে পারেনি। তাদের বক্তব্য বাজারের ভিতরে এর আগেও অনেকে সরকারী জায়গায় দখল করে ঘড় তুলেছে প্রসাশন তাদের তো কিছুই করতে পারেনি। তাহলে আমরা তুললে সমস্যা কোথায়। আবার কেহ বলছে বিশ্বাস বাড়ীর দাগের মাথার জমি তাই চেয়ারম্যান সাহেবের অনুমোতি নিয়ে তুলছি। চান্দুপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মো. নাসির হাওলাদার বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যান তপন বিশ্বাসের অনুমোতি নিয়ে ঘড় তুলছি। এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. তপন বিশ্বাসের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তাদের ঘড় তুলতে বলেছি কথাটি সঠিক নয়। পানি উন্নয়ন বোর্ড’র প্রসাশনের অনুমোতি সাপেক্ষে আমি তাদের ঘড় তুলতে বলেছি। তারা প্রসাশনের অনুমোতি নিয়েছে কি না তা আমি জানিনা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার মো. ওয়ালিউজ্জামান বলেন, সরকারী জমিতে ঘড় তোলার বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে এবিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিবো।


মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest