ভূমিদস্যুর হাত থেকে কোনভাবেই রক্ষা পাচ্ছেনা জলঢাকা ডাকুর ডাঙ্গার খেলার মাঠটি

প্রকাশিত: ১১:৪৩ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০২০

হারুন অর রশিদ(রিয়াদ)জলঢাকা (নিলফামারী) প্রতিনিধিঃ নীলফামারী জলঢাকা উপজেলাধীন পৌরসভার একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্থান চেরেঙ্গা ডাকুরডাঙ্গা । আর এখানকার একমাত্র খেলার মাঠটি এখন ভূমিদস্যুদের দখলে। স্থানীয় সুত্রে জানা যায় এই ডাকুরডাঙ্গায় সরকারি জমির অন্তত অভাব নেই তার মাঝে একটু ফাকা যায়গা যদিও এটি একটি মাঠ কিন্তু বর্তমানে এটাকে মাঠ বলা যায় না। দিনে দিনে এখানকার মাঠটি যেমন হারাতে বসেছে তার ঐতিহ্য তেমনি হারাতে বসেছে রূপবৈচিত্রও। মাঠের ঠিক পাশের মুদি দোকানি করিফুল আলোকিত.কমকে বলেন, একমাত্র জলঢাকা ছাড়া আশেপাশে আর কোন মাঠ নেই তাই ডাকুর ডাঙ্গার এই মাঠে স্থানীয় এলাকাসহ আশেপাশের বিভিন্ন এলকার খেলোয়াড়েরা এই মাঠে এসে খেলা করে। কিন্তু বর্তমানে মাঠটি প্রায় অর্ধেকে চলে গেছে ভূমিদস্যুদের দখলে।এদের হাত থেকে কোনোভাবেই এটাকে রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছেনা। এটা আমাদের কাম্য নয়। সরেজমিনে খেরোয়ার ফেরদৌস ইসলামের সাথে মাঠের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এই মাঠে খেলা করে আমি বড় হয়েছি আর আমি মনে করি খেলাধুলার প্রয়োজনও আছে তাই বর্তমান এবং আগামী প্রজন্মের জন্য ভূমিদস্যুদের হাত থেকে মাঠটিকে রক্ষা করতে হবে এবং মাঠটির যথাযথ সংস্করণের জন্য স্থানিও নেতা ও প্রসাশনের হস্তক্ষেপেরজানাচ্ছি। এ বিষয়ে জলঢাকা পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রহমত আলির কাছে মাঠ সংস্করণের বিষয়ে কথা বলতেই তিনি বলেন, বিষয়টি আমি অনেক আগে থেকেই অবগত তাছাড়া আমার নির্বাচনী ইশতেহার ছিলো মাঠটিকে সংস্করন করা লিখিত অভিযোগ আকারে আমার কাছে আসলে এ বিষয়ে আমি পৌর মেয়র ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহায়তায় ব্যবস্থা নিবো। স্থানীয় খেলোয়াড়েরা অনেক দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, এই অঞ্চলের একমাত্র এই মাঠটিকে ভূমিদস্যুরা তাদের নিজেদের দখলে নিয়েছে এমনকি নানা ধরনের গোডাউন ঘড় মাঠের ভিতরে স্থাপন করা হয়েছে এতে দিনে দিনে মাঠটি তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে।আমরা অনেক প্রতিনিধীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি মাঠটিকে ভূমিদস্যুদের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য এমনকি এ নিয়ে আমরা অনেক আন্দোলন ও করেছি কিন্তু কোনো সাফল্যের দেখা পাইনি। তারা আরো বলেন, মাঝে মাঝে কিছু প্রভাবশালি ব্যাক্তির জন্য ট্রলি ভর্তি বালু মাঠের পাশের দিঘি থেকে উত্তলন করার কারনে মাঠের ঐতিহ্য আজ মৃত প্রায়। আমরা স্থানীয় খেলোয়াড়েরা এর থেকে পরিত্রান চাই, আমাদের খেলার মাঠটি যেন আবার আগের রুপে ফিরে আসে সেজন্য স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি। এ বিষয়ে জলঢাকা পৌর মেয়র ফাহমিদ ফয়সাল কমেট চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার চেস্টা করেও কোন সারা পাওয়া যায়নি।


মুজিব বর্ষ

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Pin It on Pinterest