রাত জেগে রাস্তার সংস্কার কাজ দেখভাল করছেন পৌর মেয়র নাদের বখত

প্রকাশিত: ৩:৫৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২৪, ২০১৯

রাত জেগে রাস্তার সংস্কার কাজ দেখভাল  করছেন পৌর মেয়র নাদের বখত

শামসুল কাদির মিছবাহ, সুনামগঞ্জ:
রাতের শহরে অতন্দ্র প্রহরী হয়ে কাজ করছেন সুনামগঞ্জ পৌরসভার নন্দিত মেয়র নাদের বখত। সাম্প্রতিককালে এমন দৃশ্যই ধরা পড়েছে এই প্রতিবেদকের চোখে। পৌর শহরের বিভিন্ন সড়কের খানাখন্দ সংস্কারের নিয়মিত কাজের অংশ হিসেবে সম্প্রতি শুরু হওয়া সংস্কার কাজে পৌর মেয়র নাদের বখত রাত ১০/১১টা থেকে ভোর রাত পর্যন্ত রাস্তায় দাঁড়িয়ে নিজে কাজ তদারকি করছেন। গত ২১ নভেম্বর রাত দুপুরে অফিস থেকে বাসায় ফেরার পথে শহরের আলীপাড়া এলাকায় দেখা যায়, রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। হটাৎ চোখে পড়লো পৌর মেয়র নাদের বখত নিজে দাঁড়িয়ে কাজ তদারকি করছেন। এসময় মেয়রের সাথে দেখা যায়, পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মীর মোশাররফ হোসেন, প্রকৌশলী হেলাল আহমদ, পৌর কাউন্সিলর সৈয়দ ইয়াসিনুর রশীদসহ পৌরসভার অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।
মেয়র নাদের বখত সারারাত জেগে শহরের রাস্তার সংস্কার কাজ নিজে দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করায় বিষয়টিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন পৌরসভার সকল শ্রেণিপেশার মানুষ। যুক্তরাষ্ট্রের মতো উন্নত দেশের বিলাসবহুল জীবনের আকর্ষণ জলাঞ্জলি দিয়ে দেশপ্রেমের এমন উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত খুব একটা দেখা যায় না। যাঁর ধ্যান,জ্ঞান শ্রম ও সাধনা শুধুই জনকল্যাণে। ভোর রাত পর্যন্ত নিজে উপস্থিত থেকে রাস্তার সংস্কার কাজ করানোয় মেয়রকে সৎ, নিষ্ঠাবান, পরিশ্রমী ও নিরহংকার মানুষ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন সুশীল সমাজ। আমেরিকার মতো উন্নত জীবনের আকর্ষণ ত্যাগ করে নিজের এলাকার জনগণের জন্য তাঁর দরদ, মমতা ও আন্তরিকতায় অভিভূত হয়েছেন সর্বসাধারণ। অনেকে মেয়র নাদের বখতকে রাতের শহরের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।
শহরের কালিবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মো. শহীদুজ্জামান মিশু বলেন, কয়েক দিন আগে রাত প্রায় দেড়টার দিকে আমি লঞ্চঘাট গিয়েছিলাম নাস্তা করতে। হটাৎ দেখি পৌরসভার কর্মচারীরা রেস্তেুারায় এসেছে নাস্তা নিয়ে যেতে। আমি জানতে চাইলাম এতো রাতে নাস্তা কোথায় যাবে। তারা জানায় রাস্তার সংস্কার কাজ চলছে। পৌর মেয়র তাদেরকে পাঠিয়েছেন নাস্তা নিয়ে যেতে।
মুহাম্মদপুর এলাকার তরুণ ব্যবসায়ী সাইফুর রহমান শিবলী জানান, আলীপাড়া পয়েেেন্ট আমার মুদি দোকান। অনেক রাত পর্যন্ত দোকান খোলা থাকে। আমি পৌর মেয়র মহোদয়কে দেখেছি রাত ১০টা থেকে মুহাম্মদপুর ও আলীপাড়া এলাকার রাস্তার সংস্কার কাজ নিজে থেকে তদারকি করেছেন। আমি পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি ভোররাত ৪ টা পর্যন্ত তিনি নিজে দাঁড়িয়ে থেকে কাজ তদারকি করেছেন।
শহরের কাজির পয়েন্ট এলাকার জনৈক মুদি দোকানদার বলেন, দীর্ঘ ১৫/১৬ বছর ধরে এখানে দোকান পরিচালনা করছি। কিন্তু পৌর মেয়র নাদের বখত’র মতো এতো পরিশ্রমী ও নিরহংকার কোনো জনপ্রতিনিধি দেখিনি। তিনি গভীর রাত পর্যন্ত নিজে উপস্থিত থেকে রাস্তার সংস্কার কাজ দেখাশোনা করছেন।
কথা হয়, পৌর কাউন্সিলর সৈয়দ ইয়াসিনুর রশীদের সাথে। তিনি বলেন, শহরের রাস্তার নিয়মিত সংস্কার কাজের অংশ হিসেবে সম্প্রতি শহরের ট্্রাফিক পয়েন্ট থেকে নবীনগর, মুহাম্মদপুর, ষোলঘর, আলীপাড়া এলাকায় সংস্কার কাজ চলছে। পর্যায়ক্রমে পৌর শহরের প্রতিটি এলাকার রাস্তা সংস্কারসহ ড্রেনের ময়লা আর্বজনা পরিস্কার করা হবে।
পৌর মেয়র নাদের বখত বলেন, পৌর শহরের রাস্তার সংস্কার কাজ এটা চলমান প্রক্রিয়া। নাগরিকদের যাতে ভোগান্তি পোহাতে না হয় এজন্য শহরের সবকটি রাস্তা কার্পেটিংয়ে মোড়া থাকবে। আগামী ৩ মাসের মধ্যে রাস্তায় আরামদায়ক চলাচলের উপযোগি করে দেবো। সর্বোচ্চ ৬ মাসের মধ্যে শহরের সবকটি রাস্তার কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন হয়ে যাবে।
মেয়র আরো বলেন, আজ শনিবার থেকে শহরের প্রতিটি ড্রেন ক্লিন করার কাজ শুরু হবে। যাতে বৃষ্টি-বাদলের দিনে দ্রুত পানি নিস্কাশন হয়। শহরকে জলাবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা করতে আগামী জানুয়ারী পর্যন্ত ড্রেন ক্লিনের কাজ চলবে। পাশাপাশি ব্রিজ, কালভার্ট নির্মাণ করা হবে। শহরের হাজিপাড়া এলাকার ব্রিজ ভেঙ্গে নতুন ব্রিজসহ শহরের অন্যান্য ব্রিজের সংস্কার ও কালভার্ট নির্মাণের কাজ হবে। আগামী মাস দু’য়েকের মধ্যে প্রায় ৮ কোটি টাকার কাজের টেন্ডার হবে। আগামী ৬ মাসের মধ্যে আমি শহরকে অন্যরকম উন্নত শহরে পরিণত করতে চাই।


মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest