উত্তরবঙ্গ আদিবাসী সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া উন্নয়ন সংগঠনের সাফল্যের এক যুগ

প্রকাশিত: ২:২৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১, ২০১৯

উত্তরবঙ্গ আদিবাসী সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া উন্নয়ন সংগঠনের সাফল্যের এক যুগ

দিনাজপুর থেকে সিদ্দিক হোসেন ॥ দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলায় উত্তরবঙ্গের সমতলের সাঁওতাল আদিবাসীদের কৃষ্টি, সংস্কৃতি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে এক যুগ আগে ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল “উত্তরবঙ্গ আদিবাসী সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া উন্নয়ন সংগঠন”। সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবিদের শ্রম ও সামর্থবানদের অনুদানে পরিচালিত এই সংগঠন দরিদ্র সাঁওতাল পরিবারকে স্বাবলম্বি করতে কৃষি, কুটির শিল্প, হাঁস-মুরগী বা গবাদি পশু পালনের সহায়তা প্রদান, নিজস্ব সাংস্কৃতি চর্চা অনুশীলন ও অনুষ্ঠান, শিশু ও যুবাদের শারীরিক স্বক্ষমতা বৃদ্ধিতে খেলাধুলার চর্চা করে আসছে। ২০১৬ সাল থেকে দায়িত্ব গ্রহণের পর এযাবৎ সংগঠনের সম্পাদক মিসেস. মেরিলিন কুইন মুরমুর তত্ত্বাবধানে বিলুপ্ত প্রায় সানতালি ভাষার পূনঃচর্চা ও উন্নয়নে শিশু, কিশোর, যুবা ও বয়স্কদের মধ্যে সনাতলি হরফ (রোমান) শিক্ষা কার্যক্রম ও ভূমি দস্যুদের হাত থেকে আদিবাসী সাঁওতালদের পৈত্রিক জমি ও ভিটামাটি রক্ষায় সচেতনতা বৃদ্ধি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। সংগঠনটি আশা আদিবাসী সাঁওতাল জনগোষ্ঠী শিক্ষা, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বি হয়ে দেশের মূল ধারায় মিলে-মিশে অবদান রাখবে। এছাড়াও আদিবাসী ও নৃ-গোষ্ঠীদের নৈতিক শিক্ষা ও সংস্কৃতি চর্চা পরিচালনা করে সমাজে বিভিন্ন শ্রেণির সাথে কর্মক্ষেত্রে মতের ভাব বিনিময় করতে সহায়তা করা হচ্ছে। এই সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন দপ্তরে সকলের সাথে কথা বলার বাচনভঙ্গী তৈরী হবে। এজন্য বিশেষ করে সাঁওতাল আদিবাসীদের সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি সু-শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তোলার বিশেষ ভূমিকা পালন করতে হবে এজন্য সমাজের বৃত্তবানদের একান্ত সহযোগিতা প্রয়োজন।


এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest