দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলায় কন্যা শিশুকে ধর্ষণ ও হত্যা ঘটনার দ্রুত বিচারের দাবীতে মহিলা পরিষদের স্মারকলিপি প্রদান

প্রকাশিত: ১১:৩৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩, ২০১৯

দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলায় কন্যা শিশুকে ধর্ষণ ও হত্যা ঘটনার দ্রুত বিচারের দাবীতে মহিলা পরিষদের স্মারকলিপি প্রদান

দিনাজপুর থেকে সিদ্দিক হোসেন ॥ দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলায় চার বছরের কন্যা শিশুকে ধর্ষণ ও হত্যা ঘটনার তীব্র নিন্দা ও দ্রুত বিচারের দাবীতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরারব স্মারকলিপি প্রদান করেছেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখা। স্মারকলীপি গ্রহণ করেন নবাগত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন এবং জেলা প্রশাসকের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি) মোঃ সানিউল ফেরদৌস। মঙ্গলবার বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি কানিজ রহমান ও সাধারন সম্পাদক ড. মারুফা বেগম স্বাক্ষরিত জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর পৃথক পৃথক প্রেরিত স্মারকলিপিতে বলা হয়, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, দিনাজপুর জেলা শাখা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছে যে, দিনাজপুর জেলায় নারীর উপর পাশবিক নির্যাতন বেড়েই চলেছে। এ ধরনের ঘটনাগুলোর সুষ্ঠু বিচার না হওয়া এবং প্রশাসনের উদাসীনতার কারণে এই ভয়াবহ ক্রমবর্ধমানতা। নারীর লজ্জা সম্ভ্রম এভাবে ভুলুন্ঠিত হতে থাকলে সমাজে উন্নয়নের স্রোতধারা বাধাগ্রস্থ হবে। সম্প্রতি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার রঘুনাথপুর,মধ্য ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের ভ্যান চালক আরিফুল ইসলামের চার বছরের কন্যা শিশু আবিদা সুলতানা মিম কে পৈশাচিকভাবে ধর্ষণ করে একই গ্রামের আমজাদ হোসেন (১৯) নামের এক যুবক। ধর্ষনেই তার মৃত্যু ঘটলে মিমের মরদেহ ঘরে বস্তা পেচিয়ে লুকিয়ে বাড়ীতে তালা ঝুলিয়ে দেয় আমজাদ। ধর্ষণের মতো এসব ঘটনায় দেশের আইন ও বিচারব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মামলার তদন্ত ও বিচারের দীর্ঘসূত্রিতার কারণে অপরাধীদের শাস্তি প্রদান বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। মহিলা পরিষদ মনে করে, এ জাতীয় অপকর্মের উপযুক্ত বিচার এবং শাস্তি নিশ্চিত হলেই, তবে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে না। এছাড়াু যৌন হয়রানি বন্ধে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হাইকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক ‘যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি’ এর কার্যক্রম জোরদার করাসহ বিভিন্ন নির্দেশনা বাস্তবায়নে সরকারি উদ্যোগ প্রয়োজন। ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক না কেন, সবাইকে আইনের মাধ্যমে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আর তা না হলে,মিম-রুপা-নুসরাত-শাহিনুরের মতো আরও প্রাণ অকালে ঝরতে থাকবে। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ,দিনাজপুর জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ পার্বতীপুর উপজেলায় ঘটে যাওয়া ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত ও অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছে। স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর মহিলা পরিষদের সভাপতি কানিজ রহমান, সহ-সভাপতি মিনতি ঘোষ, নুরুন্নাহার, সহ-সাধারন সম্পাদক মনোয়ারা সানু, সাংগঠনিক সম্পাদক রুবিনা আকতার, লিগ্যাল এইড সম্পাদক জিন্নুরাইন পারু, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক শুক্লা কুন্ডু প্রমুখ।


এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest