চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধির দাবি

প্রকাশিত: ৪:৫১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১১, ২০২২

চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধির দাবি

রাবি প্রতিনিধি:
সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা স্থায়ীভাবে বৃদ্ধিসহ ৪ দফা দাবি জানিয়েছে রাজশাহীর শিক্ষার্থীরা।

সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য পরিষদের আয়োজনে মঙ্গলবার(১১ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রধান ফটকের সামনে এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানান তারা।

অন্যান্য দাবিগুলো হলো, নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতি ও জালিয়াতি বন্ধ, প্রিলি ও রিটেন পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরসহ ফলাফল প্রকাশ, আবেদনের ফি সর্বোচ্চ ১০০ টাকা এবং একই সময়ে একাধিক নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করে সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষার ব্যবস্থা করা।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বেকারত্ব, পরিবারের চাপ ও আর্থিক কষ্টে অনেকেই আত্মহত্যা করছে। পড়াশুনা করার পর ভালো চাকরি না পাওয়ায় হতাশ হয়ে তারা এ ধরনের আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। আজ কোটি কোটি টাকা দুর্নীতির মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁস করা হচ্ছে। ঘুষ ছাড়া চাকরি হচ্ছে না। আমাদের তো এত টাকা নেই যে ঘুষ দিয়ে চাকরি নিব। তাহলে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা কোথায় যাব?

তারা আরো বলেন, আমরা শিক্ষার্থী, থাকা খাওয়ায় আমাদের এমনিতেই অনেক টাকা চলে যায়, এর মধ্যে এক একটা আবেদন ফি দুই-তিন হাজার টাকা। আমরা কিভাবে ফর্ম গুলো পূরণ করবো। তাই আমাদের দাবি সকল পরীক্ষার আবেদন ফি ১০০ টাকার মধ্যে নিয়ে আসা হোক।

রাবির সাবেক শিক্ষার্থী কামরুজ্জামান বলেন, ‘আমাদের আশেপাশের প্রায় ৪০ টি দেশে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ থেকে ৪০ বছর বা তারও উর্ধ্বে আছে। অথচ বাংলাদেশে এ নীতি কখনো অনুসরণ করা হয় না। অনেকে ভালো পড়াশোনা করেও কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে না। আর ইদানিং আমরা দেখতে পাচ্ছি একই সময়ে একাধিক পরীক্ষা গ্রহণ করা হচ্ছে। এতে করে আমরা টাকা দিয়ে আবেদন করেও পরীক্ষা দিতে পারছি না। যা আমাদের সাথে প্রতারণার সামিল। এমন প্রতারণা দ্রুত বন্ধ করতে হবে।’

কর্মসূচিতে আজিজুল হক কলেজের শিক্ষার্থী আতিকুর রহমানের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী খাইরুল ইসলাম, কামরুজ্জামান, শিবলী নোমান, ইসরাত জাহান, নবাব সিরাজউদৌলা কলেজের শিক্ষার্থী বেলাল উদ্দিন প্রমুখ। এ সময় রাজশাহী বিভাগের অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।


মুজিব বর্ষ

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Pin It on Pinterest