রাজশাহী জেলায় ১৮৯ মেট্রিক টন চাল মজুদ আছে: ডিসি

প্রকাশিত: ৪:৪০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১, ২০২০

রাজশাহী জেলায় ১৮৯ মেট্রিক টন চাল মজুদ আছে: ডিসি
ওমর ফারুক, ব্যুরো প্রধান, রাজশাহী: রাজশাহী জেলায় মোট এক লাখ ৪৫ হাজার দরিদ্র পরিবার রয়েছে। যার মধ্যে ৬০ হাজার ৬০০টি পরিবারের মাঝে ৬০৭ মেট্রিক টন খাদ্য সামগ্রী ও ১৪ লাখ ৫০ হাজার নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) হামিদুল হক। তিনি জানান, জেলা প্রশাসনের কাছে ১৮৯ মেট্রিক টন চাল ও ৪লক্ষ ৫ হাজার নগদ অর্থ মজুদ আছে। এর বাইরে স্থানীয় সরকারের তহবীল থেকেও জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। প্রয়োজনে আগামীতে দরিদ্র পরিবার চিহ্নিত করে চাহিদা সাপেক্ষে সহায়তার পরিমাণ বৃদ্ধি করা হবে। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে রাজশাহীতে সরকারের সহযোগীতা, প্রস্তুতি ও বর্তমান পরিস্থিতি তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলনে হামিদুল হক এসব তথ্য জানান। বুধবার দুপুরে জেলা প্রশসনের সম্মেলন কক্ষে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক রাজশাহী বাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, পরবর্তি নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত ঘরে থাকুন। যে কোন পরিসিস্থতে রাজশাহী প্রস্তুত আছে। জনগণের সহযোগীতা প্রয়োজন। রামেক হাসপাতাল বাদে রাজশাহীর উপজেলাগুলোর ১০টি সরকারি চিকিৎসা কেন্দ্রে ১৬ জন চিকিৎসক ও ১৩জন নার্স প্রস্তুত আছেন। এছাড়া চিকিৎসাকেন্দ্রগুলোর ৪৬২টি বেডের মধ্যে ১১৫টি বেড করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য পৃথক ভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে। চিকিৎসাকর্মীদের মাঝে ৩৩৭টি পিপিই বিতরণ করা হয়েছে। সংগ্রহে আছে আরো ৬৬৩টি। রাজশাহী জেলায় সরকারি অনুদানের চিত্র তুলে ধরে ডিসি জানান, দেশে করোনা পরিস্থিতি উদ্ভবের পর রাজশাহী মাহানগরে ৯হাজার দরিদ্র পরিবারের মাঝে ৯০ মেট্রিক টন খাদ্য সহায়তা ও ৩ লাখ ৫হাজর নগদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে। গোড়াগাড়ীতে ৬ হাজার ৬০০ পরিবারের মঝে ৬৬ মেট্রিক টন খাদ্য সহায়তা ও নগদ ১ লক্ষ টাকা, তানোরে ৫হাজার ৪০০ পরিবামের মাঝে ৫৪ মেট্রিক টন খাদ্য সহায়তা ও নগদ ১ লক্ষ টাকা, পবায় ৬হাজার পরিবারের মাঝে ৬০ মেট্রিক টন খাদ্যদ্রব্য ও নগদ ১লক্ষ টাকা, মোহনপুরে ৪হাজার ২০০ পরিবারের মাঝে ৪২ মে.টন খাদ্যদ্রব্য ও নগদ ১লক্ষ টাক, বাগমারায় ১০ হাজার ৮০০ পরিবারের মঝে ১০৮ মে.টন খাদ্যদ্রব্য ও নগদ ১লক্ষ টাকা, দুর্গাপুরে ৪হাজার ৮০০ পরিবারের মধ্যে ৪৮ মে.টন বাদ্যদ্রব্য ও নগদ ১লক্ষ টাকা, পুঠিয়ায় ৪ হাজার ২০০ পরিবারের মধ্যে ৪২ মে.টন খাদ্যদ্রব্য ও ১লক্ষ টাকা, চারঘাটে ৪হাজার ২০০ পরিবারের মাঝে ৪২ মে.টন খাদ্যদ্রব্য ও ১লক্ষ টাকা এবং বাঘায় ৫হাজার ৪০০ পরিবারের মাঝে ৫৪.৯৯০ মে.টন খাদ্য সহায়াত ও ৩ লাখ ৪৫ হাজার নগদ অর্থ সহায়াত প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া জেলা প্রশাসনের কাছে ১৮৯ মে.টন চাল ও ৪লক্ষ ৫ হাজার নগদ অর্থ মজুদ আছে। হামিদুল হক জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে দরিদ্র পরিবারগুলোর তালিকা করা হয়েছে। তালিকা নিয়ে অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সামাজিক দূরত্বের ওপর গুরুত্বআরোপ করে জেলা প্রশাসক জানান, সাপ্তাহিক হাটগুলো বন্ধ করা হয়েছে। তবে নিত্য পণ্যের দ্রব্যসামগ্রীর দোকানগুলো খোলা রাখাতে বলা হয়েছে। তবে কাঁচা বাজারগুলোতে এখনো জনসমাগম হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে ভাবা হচ্ছে। পাইকারি বাজার ও খুচরা বাজার পৃথক করা হয়েছে। পণ্যবাহী পরিহণগুলো চলাচল করছে। রাজশাহীতে পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য মজুদ আছে।

মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest