দাকোপের ব্যাস্ততম পোদ্দারগঞ্জ ঘাটের করুনহাল,হাটুপানি ভেংগে নারি পুরুষের পারাপার।ট্রাকপারে জিবনের ঝুকি।

প্রকাশিত: ৪:৪২ অপরাহ্ণ, মে ১৮, ২০২২

দাকোপের ব্যাস্ততম পোদ্দারগঞ্জ ঘাটের করুনহাল,হাটুপানি ভেংগে নারি পুরুষের পারাপার।ট্রাকপারে জিবনের ঝুকি।

গোলাম মোস্তফা খান,দাকোপ,খুলনা
দাকোপের প্রধান ও ব্যাস্ততম পোদ্দারগঞ্জ খেয়াঘাটটিতে জোয়ারের সময় হাটুপানিরও বেশি বেড়ে যাওয়ায় হাজার হাজার যাত্রী,শত শত ট্রাক, টেম্পু,মোটরসাইকেল,সাইকেল,ভ্যাননিয়ে ও নারী যাত্রীদের চলাচলে মারাত্তক দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
দাকেপ সদর চালনাবাজারের সাথে ও খুলনা শহরে যাতাযাতের জন্য এই পোদ্দারগঞ্জ নদী পার হয়ে বাজুয়া এলাকার ৫ ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ ও বর্তমানে ট্রাকে তরমুজ পারাপারের প্রধান মাধ্যম হচ্ছে পোদ্দারগঞ্জের ফেরি বা ট্রলার। এখানেও ব্রীজ হবে হবে, একনেকে পাস হবে,কেউ বলে হয়ে গেছে এমন বলতে বলতে যুগ কেটে গেল ব্রীজ আর হয় না।ব্রীজ না হওয়ায় নদী হাটু পানিরও বেশি পানি পায়ে ঠেলে পার হতে হচ্ছে জিবনের ঝুকি নিয়ে। অনেক মহিলা লজ্জায় পার হতে পারছে না, লজ্জায় ঘন্টার পর ঘন্টা বসে আছে পানি কখন কমবে সে অপেক্ষায়। দিনরাত শত শত তরমুজ বোঝাই ট্রাকগুলিকেও জিবনের ঝুকি নিয়ে পার হতে হচ্ছে পানি ঠেলে। এমনিভাবে দাকোপের প্রধান দুটি ঘাট পোদ্দারগঞ্জ ও বরনপাড়া ঘাটের করুনদশা সারা বছর লেগেই থাকে। তারউপর বর্তমানে ঘাটে বানিজ্যের ভাগ বসাতে বিভিন্ন ম্রেণীর প্রভাবশালিরাও হাত বসাচ্ছে বলে বিস্বস্থ সূত্রের অনেক তাজা খবর আছে যা এবার তরমুজ দিয়েই শুরু হয়ে এখনও দেদারছে চলছে। কেউ কেউ সমাজসেবক সৎ ব্যাক্তি সেজে জনগনের উপকার করতে এসে ভাগ বসাচ্ছে,কম পড়লে প্রশাসনের কাছে গিয়ে ভুল বুঝায় এমনটাই এক শ্রেণীর মানুষের বিরুদ্ধ অবিযোগ আছে বলে বার বার জানা যাচ্ছে। এ বিষয় এলাকার মিলন ও কালিপদ মন্ডল নামে ২ জন যাত্রীর সাথে আলাপ করলে জানান ঘাটের এমন অবস্থা সারা জিবন থাকবে কারন নেতাদের ঝোক শুধু টাকার দিকে পারাপারের সমস্যা কোনটা বা তরমুজে কেমন ক্ষতি হলো সেটা উনাদের দেখার বিষয় না,উনাদের পকেট ঠিকমত ভরলে সবঠিক। এবার তরমুজে কৃষক সর্বশান্ত হলেও এক শ্রেণীর মানুষ মোটা অংকের টাকা পেয়েছে এখনও পাচ্ছে।বিশেষ করে ট্রাক বানিজ্য ও ফেরি পারাপার বিষয়।


মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest