স্বাস্থ্যের জন্য কতটা নিরাপদ ই-সিগারেট

প্রকাশিত: ৪:৫৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৬, ২০১৯

স্বাস্থ্যের জন্য কতটা নিরাপদ ই-সিগারেট

 যুক্তরাজ্যের সরকারি স্বাস্থ্য বিভাগ ধূমপায়ীদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে যে, ধূমপান ছাড়ার জন্য ই-সিগারেট সহায়ক হতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম শহর হিসাবে ই-সিগারেট বা ইলেকট্রনিক সিগারেট নিষিদ্ধ করেছে সানফ্রানসিসকো। তবে যুক্তরাজ্যের সরকারি স্বাস্থ্য বিভাগ ধূমপায়ীদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে যে, ধূমপান ছাঙার জন্য ই-সিগারেট সহায়ক হতে পারে। এই সিগারেটের ভেতরে নিকোটিন, প্রোপাইলিন গøাইকল অথবা ভেজিটেবল গিøসারিন এবং সুগন্ধী মিশ্রিত থাকে। কিন্তু তামাকের ভেতর থাকা অনেক বিষাক্ত রাসায়নিকের তুলনায় (যেমন টার এবং কার্বন মনোক্সাইড) নিকোটিন তুলনামূলক কম ক্ষতি করে। নিকোটিনের কারণে ক্যান্সার হয় না, কিন্তু সাধারণ সিগারেটে ভেতরে থাকা তামাকের কারণে ক্যান্সার হতে পারে- যার কারণে প্রতিবছর হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। এ কারণেই ধূমপান বন্ধ করতে নিকোটিন গ্রহণের মাধ্যম পরিবর্তনের জন্য অনেক বছর ধরে পরামর্শ দিয়ে আসছে যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বাস্থ্য বিভাগ। যার মধ্যে রয়েছে গাম, স্কিন প্যাচেস বা মুখে স্প্রে করা। যুক্তরাজ্যের এমপিদের কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তামাকের বা সাধারণ সিগারেটের চেয়ে ই-সিগারেট অনেক কম ক্ষতিকর। চিকিৎসক, স্বাস্থ্য খাতের বিশেষজ্ঞ, ক্যান্সার নিয়ে কাজ করা দাতব্য সংস্থা বা যুক্তরাজ্যের সরকার, সবাই একমত হয়েছে যে, বর্তমানে যেসব তথ্যপ্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে, তাতে সাধারণ সিগারেটের তুলনায় ই-সিগারেট সামান্যই ঝুঁকি বহন করে। একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, সিগারেট বা ধূমপানের তুলনায় এভাবে ধোঁয়া নেয়া ৯৫ শতাংশ কম ক্ষতির কারণ হতে পারে। কিন্তু এর মানে এই নয় যে, এগুলো পুরোপুরি ঝুঁকি মুক্ত। ই-সিগারেটের ভেতরে থাকা তরল পদার্থ এবং ধোঁয়া অনেক সময় এমন সব ক্ষতিকর রাসায়নিক বহন করতে পারে, যা সাধারণ সিগারেটের ভেতরেও থাকে। তবে এর মাত্রা অনেক কম। যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানীরা এর আগে ছোট কয়েকটি পরীক্ষায় দেখেছেন, এ ধরনের ধোঁয়া গ্রহণ বা ভ্যাপিং শরীরের ফুসফুসের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় পরিবর্তন আনতে পারে। সুতরাং এভাবে ভ্যাপিং বা ধোঁয়া গ্রহণে স্বাস্থ্যের কোন ক্ষতি হয় না, এটা এখনি বলা যাবে না। তবে বিশেষজ্ঞরা একমত যে, প্রচলিত সিগারেটের তুলনায় ই-সিগারেটে ঝুঁকির মাত্রা অনেক কম। এরকম ধোঁয়া অন্যদের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে, এমন কোন প্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি। প্রচলিত সিগারেটের ধোঁয়ায় আশপাশের মানুষ যতটা ক্ষতির শিকার হয়, সে তুলনায় ই-সিগারেটের ক্ষতি তেমন একটা হিসাবের মধ্যে পড়ে না। স্কটল্যান্ডে এক জরিপে দেখা গেছে, তরুণদের অনেকে ই-সিগারেট ব্যবহার করে পরে ধূমপানে আসক্ত হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ মেয়াদে এর প্রভাব কী পড়তে পারে, সে ব্যাপারে গবেষণার প্রয়োজনীয়তার কথাও এখন উঠছে। ই-সিগারেটের ভেতর কী থাকবে, তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় যুক্তরাজ্যের আইন অনেক কড়া। যুক্তরাজ্যের ই-সিগারেটে কতটুকু নিকোটিন থাকবে, তার সীমা বেঁধে দেয়া হয়েছে, যা যুক্তরাষ্ট্রের আইনে নেই। ১৮ বছরের কারো কাছে এ ধরনের সিগারেট বিক্রি করা যাবে না। ই-সিগারেটের ক্ষেত্রে অনেকটা একই ধরনের দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে কানাডা ও নিউজিল্যান্ডে। ঢাকায় জন্ডিসে আক্রান্ত ৩০ শতাংশ রিকশাচালক । কিন্তু আপনি জানেন কি – ঠিক কী পরিমাণ রিকশা ঢাকা শহরে চলে আর এর সাথে সংশ্লিষ্ট আছে কত মানুষের জীবিকা? কিংবা তাদের মাসিক আয়ই বা কত? এসব বিষয় নিয়ে প্রথমবারের মত বিস্তর পরিসরে গবেষণা করেছে বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব লেবার রাইটস বা বিলস নামে একটি শ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠান। ঢাকায় বর্তমানে প্রায় ১১ লাখ রিকশা চলছে বলে তাদের প্রাথমিক রিপোর্টে উঠে এসেছে। এই রিকশাগুলো সাধারণত বিভিন্ন সংস্থার অধীনে নিবন্ধন পেয়ে থাকে। এ ব্যাপারে সংস্থাটির গবেষণা পরিচালক কোহিনূর মাহমুদ জানান, ‘অনেক সময় একই রেজিস্ট্রেশনে একাধিক রিকশা দেখা যায়। মানে একই নম্বরে অনেকগুলো রিকশা। যার কারণে রেজিস্ট্রেশন দেখে রিকশার প্রকৃত সংখ্যা বের করা খুব কঠিন।’ তবে ইউনিয়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তি, গ্যারেজ মালিক, সিটি করপোরেশন সবার সাথে কথা বলে ধারণা করা হয় যে, ঢাকা ও এর আশেপাশে প্রায় ১১ লাখ রিকশা চলছে। ঢাকার এসব রিকশার ওপর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অন্তত ২৭ লাখ মানুষের জীবিকা নির্ভর করে বলে গবেষণায় জানা যায়। কেননা একটি রিকশা সাধারণত দুই শিফটে চালানো হয়। একজন হয়তো সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চালান, আরেকজন দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত। সেক্ষেত্রে রিকশার সংখ্যা যদি ১১ লাখ ধরা হয় তাহলে রিকশা চালকের সংখ্যাই দাঁড়ায় ২২ লাখে। সেই সঙ্গে, রিকশা মেরামত, রিকশার যন্ত্রাংশ ব্যবসায়ী, গ্যারেজ ব্যবসায়ী সব মিলিয়ে আরও কয়েক লাখ মানুষের জীবিকা এই রিকশার সাথে যুক্ত। ঢাকার অন্যান্য শ্রমিকের তুলনায় রিকশা চালকের আয় ভাল বলে মনে করেন বিলসের পরিচালক কোহিনূর মাহমুদ। জরিপ দেখা গেছে যে, একজন শ্রমিক যদি প্রতিদিন রিকশা চালান তাহলে মাসে ২৪ হাজার থেকে সর্বনিম্ন ১৩ হাজার ৩৮২ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। রংপুর থেকে আসা মোহাম্মদ লিটন মিয়া প্রায় ১০ বছর ধরে ঢাকায় রিকশা চালাচ্ছেন। সপ্তাহে ছয় দিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে তার দৈনিক আয় হয় ৫০০-৭০০ টাকা। এই হিসেবে তার মাসিক আয় দাঁড়ায় গড়ে ১৮,০০০ টাকা। এই আয়ের পুরোটাই নির্ভর করে পরিস্থিতির ওপর। যেদিন তাদের কোন কাজ থাকেনা, সেদিন রোজগারও নেই। ১০ বছর আগে যেখানে আয় ছিল এর অর্ধেক কিংবা তারও কম, অর্থাৎ দিনে প্রায় ২৫০-৩৫০ টাকা। এদিকে গবেষণায় উঠে এসেছে যে রিকশাচালকদের মধ্যে ৮৫ শতাংশ রিকশাচালক অন্য কোন পেশার সুযোগ পেলেও রিকশা চালানো ছাড়তে চান না। আয় রোজগার আগের চাইতে বাড়লেও জীবনমানের কোন উন্নতি হয়নি। বিশেষ করে তাদের বিশ্রাম, খাবার দাবার, বিশুদ্ধ পানি ও টয়লেটের সংকটে ভুগতে হয় প্রকটভাবে। এছাড়া একজন রিকশা চালকের পক্ষে প্রতিদিন রিকশা চালানোও সম্ভব হয় না। কেননা এই কাজটি খুবই শ্রমসাধ্য এবং রোদ-বৃষ্টিতে পুড়ে তাদের রিকশা চালাতে হয়। যার একটা বড় ধরনের প্রভাব তাদের স্বাস্থ্যের ওপর পড়ে, বলে জানান মিজ. মাহমুদ। বিলসের জরিপ অনুযায়ী, ঢাকার ৯৪% রিকশা চালকই অসুস্থ থাকেন। বিশেষ করে জ্বর-কাশি, ঠাÐা, গায়ে ব্যথা, দুর্বলতা লেগেই থাকে। সেইসঙ্গে ৩০ শতাংশ জন্ডিসে আক্রান্ত বলে ওই জরিপে উঠে এসেছে। তার কারণ তাদের জন্য রাস্তাঘাটে সুপেয় পানির কোন ব্যবস্থা নেই। এছাড়া টয়লেটের সংকটের ভুগতে হয়। রিকশা চালকরা সুপেয় পানি, পুষ্টিকর খাবার ও টয়লেটের তীব্র সংকটে ভোগেন। রিকশা চালক রিপন মিয়া জানান, তাদের বেশিরভাগ সময় ড্রেনে বা গাছপালার আড়ালে টয়লেটের কাজ সারতে হয়। এছাড়া যে কয়টা মোবাইল টয়লেট বা পাবলিক টয়লেট রয়েছে, সেগুলো ব্যবহারের ক্ষেত্রেও ৫ থেকে ১০ টাকা গুণতে হয় বলে তিনি জানান। বেশিরভাগ রিকশাওয়ালা তাদের দিনের খাওয়া সারেন বিভিন্ন টংয়ের দোকানে রুটি, কেক ও চা খেয়ে। যেন তারা ভাত খাওয়ার পয়সা সাশ্রয় করতে পারেন। এখন রাস্তাঘাটে যদি তাদের কথা ভেবে সস্তায় পুষ্টিকর খাবার বিক্রির ব্যবস্থা রাখা হতো, তাহলে তাদের হয়তো এতোটা ভোগান্তির মুখে পড়তে হতো না বলে মনে করছে সংস্থাটি। সব মিলিয়ে এই রিকশা চালকরা বড় ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকেন বলে জানান কোহিনূর মাহমুদ। এছাড়া রিকশার আকৃতি ও প্রকৃতি আমাদের দেশের গড়-পড়তা যে শ্রমিকরা আছেন তাদের জন্য আদর্শ নয় বলে তিনি মনে করেন। মিজ. মাহমুদ বলেন, ‘যেই চালক লম্বা তাকে রিকশাটা নুয়ে চালাতে হয়। যিনি খাটো, তাদের দাঁড়িয়ে চালাতে হয়। আবার যারা শারীরিক প্রতিবন্ধী, তারাও রিকশা চালান। কিন্তু রিকশাটা তাদের অনুযায়ী আরামদায়ক করে হয় না। যার কারণে তারা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়েন। এই বিষয়গুলো সবসময় এড়িয়ে যাওয়া হয়।’ এতে করে অনেক শ্রমিকের গাযে ব্যথা, দুর্বলতা থেকে শুরু করে তাদের কাজ করার ক্ষমতা আগের চাইতে কমে যায় বলে গবেষণায় উঠে আসে। অর্থাৎ বেশিরভাগ শ্রমিক দীর্ঘমেয়াদে কাজ করতে পারে না বলে জানান মিজ. মাহমুদ।


এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

মুজিব বর্ষ

Pin It on Pinterest